ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিরুদ্ধে কঠোর আইন হচ্ছে পাকিস্তানে

প্রকাশিত: ৮:১৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০২০

ক্রিকেটে ম্যাচ ফিক্সিংয়ে এক সময় পাকিস্তান ছিলো সামনে কাতারে। এই ফিক্সিংয়ের কবলে পড়ে দেশটির বড় বড় তারকা ক্রিকেটাররাও হারিয়ে গেছেন ক্রিকেট থেকে। এবার সেই পাকিস্তানই ফিক্সিংয়ের বিরুদ্ধে বড় শাস্তির আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন শাস্তিটা আরো কঠিন করার জন্য পাকিস্তান স্পট ও ম্যাচ ফিক্সিংকে ফৌজদারি আইনে নিয়ে আসছে। পিসিবি’র এমন সিদ্ধান্তের ফাইলে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান স্বাক্ষর করেছেন। এটিকে আইনে পরিণত করতে হলে পার্লামেন্টের আলোচনায় আনতে হবে। সেখানে অনুমোদন হলে এটি লিখিত আইনে পরিণত হবে। আর তখন স্পট বা ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অপরাধীকে পাকিস্তানের আইন অনুযায়ী জেলও খাটতে হবে।

পাকিস্তানের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ইমরান খান বর্তমানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। তিনি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) এর প্রধান পৃষ্ঠপোষকের দায়িত্বেও আছেন। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ইংল্যান্ড সফরের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে সম্প্রতি পিসিবি সভাপতি এহসান মানি সাক্ষাৎ করতে যান। সেই সাক্ষাতেই ইমরান স্পট ও ম্যাচ ফিক্সিংকে ফৌজদারি আইনে পরিণত করার পিসিবি’র পরিকল্পনায় সম্মতি জানান।

এটি আইনে পরিণত হলে পিসিবি’র দুর্নীতি দমন বিভাগ যে কোনো ক্রিকেটারের ব্যাংক হিসেব, কাগজপত্র জব্দ করার এবং অভিযুক্তদের বাসায় বা অফিসে পুলিশ নিয়ে তল্লাশি চালাতে পারবে। এতদিন পর্যন্ত পিসিবি দুর্নীতি দমন কাজে আইসিসি যে বিধি-বিধান বেঁধে দিয়েছে সেটাই শুধু চলতো। স্পট ও ম্যাচ ফিক্সিং ফৌজদারি আইনে পরিণত হলে পিসিবি’র দুর্নীতি দমন বিভাগ অনেক বেশি শক্তিশালী ও কার্যকর হবে।