সাব্বিরের নৈপুণ্যে আবাহনীর জয়

‘অচেনা’ উত্তরা স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে লড়াই নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিল আবাহনী লিমিটেড। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ে সেই ছাপ একটুও চোখে পড়ল না। ঢাকা লিগের নবাগত দল উত্তরাকে সহজেই হারাল আবাহনী। ১৮৯ রানের বিশাল জয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিল শিরোপা ধারীরা।

ফতুল্লায় টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৬ উইকেটে ২৮৫ রান তোলে আবাহনী। জবাবে ৯৬ রানে গুটিয়ে যায় উত্তরা।

আবাহনীকে দারুণ এক জয় উপহার দিয়েছেন সাব্বির রহমান। তার অলরাউন্ড নৈপুণ্যে জিতেছে আবাহনী। ৩৫ বলে ৪ চার ও ৪ ছক্কায় ৬১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন সাব্বির। পরবর্রীতে বল হাতে নেন ২ উইকেট।

আবাহনীর বিদেশি ক্রিকেটার কুশল সিলভা আজও ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ। ১০ রানে আউট হন নাহিদ হাসানের বলে। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া জহুরুল ইসলাম অমির ব্যাট থেকে আসে ৪৫ রান। তিনে নামা নাজমুল হোসেন শান্তর সঙ্গে চতুর্থ উইকেটে ৯১ রানের জুটি গড়েন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এ সময়ে দুজনই পান হাফ সেঞ্চুরির স্বাদ।

শান্ত সর্বোচ্চ ১১৮ বলে ৮৩ রান করেন। ৭ চার ও ২ ছক্কায় সাজান ইনিংসটি। আবাহনীর অধিনায়ক মোসাদ্দেক ৬৫ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় করেন ৬১ রান। ব্যাট হাতে শেষ ঝড়টা তোলেন সাব্বির। ৪৪ মিনিট ক্রিজে থেকে দ্যুতি ছড়ান জাতীয় দলের এ ক্রিকেটার। সাব্বিরেরর দৃঢ়তায় আবাহনী ২৮৫ রানের পুঁজি পায়। উত্তরার হয়ে বল হাতে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন পেসার নাহিদ হাসান।

বোলিংয়ে লড়াই করলেও ঢাকা লিগের নবাগত দলটি ব্যাটিংয়ে ছিল একেবারেই নড়বড়ে। রুবেলের তোপে ২৯ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় তারা। রুবেল প্রথম চার ওভারেই তুলে নেন ৩ উইকেট। সাইফউদ্দিন নেন অপর উইকেট।

শুরুর ধাক্কা সামলে উঠতে পারেনি উত্তরা। ব্যাটিংয়ে সর্বোচ্চ ২৪ রান করেন সাতে নামা উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান শাকির হোসেন। এছাড়া ১৬ করে রান করেন আনিসুল ইসলাম ইমন ও অধিনায়ক মোহাইমুনিল খান। বিদেশি ক্রিকেটার রাজা আলী দারের ব্যাট থেকে আসে ১৫ রান।

রুবেল ৫ ওভারে ২ মেডেনে ১৬ রানে নেন ৩ উইকেট। সাব্বির ২ ওভারে ৪ রানে নেন ২ উইকেট। আরিফুল হাসানও পেয়েছেন ২ উইকেট।

টানা দুই জয়ে প্রিমিয়ার লিগের শুরুটা দারুণ হয়েছে শিরোপা ধারীদের। অন্যদিকে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শেখ জামালকে হারিয়েছিল উত্তরা। আজ হেভিওয়েট আবাহনীর বিপক্ষে পেরে উঠেনি তারা।

 

সুত্র : রাইজিংবিডি

Add your comment

Your email address will not be published.