বসন্তের প্রথম দিন আজ 1

বসন্তের প্রথম দিন আজ

ফাগুনের সঙ্গে হাত ধরাধরি করে এসেছে ঋতুরাজ। আজ বসন্তের প্রথম দিন। প্রতিবারের মতোই রাঙিয়ে দিতে এসেছে ফাগুন। শূন্য হৃদয় ভরিয়ে দিতে এসেছে।

ষড়ঋতুর বাংলাদেশ প্রতি দুই মাস অন্তর রূপ পরিবর্তন করে। শুরু হয় গ্রীষ্ম দিয়ে। বসন্ত দিয়ে শেষ। বিপুল ঐশ্বর্যের অধিকারী এই বসন্ত। বৃক্ষের নবীন পাতায় আলোর নাচন। ফুলে ফুলে বাগান ভরে উঠেছে। মৌমাছির গুঞ্জন। কোকিলের কুহুতান। সব, সবই বসন্তকে আবাহন করছে। জানিয়ে দিচ্ছে- আজি বসন্ত জাগ্রত দ্বারে।

ফাগুনের এই ক্ষণে বিবর্ণ প্রকৃতি জেগে উঠেছে নতুন করে। সেই বর্ণনা দিতে গিয়ে হয়তো উচ্ছ্বসিত কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় বলেছিলেন- ফুল ফুটুক না ফুটুক/ আজ বসন্ত…।

মনের গহীন কোণে অতি সূক্ষ্ম যে চাঞ্চল্য, সে তো কেবল বসন্তই জাগাতে পারে! প্রিয়জনের স্পর্শ নিয়ে বাঁচার সুখেরই নাম বসন্ত। বুক ধুঁকপুক, সেই শিহরণ জাগানিয়া ফাগুন এসেছে।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের কথায়, ‘ফুলের বনে যার পাশে যাই তারেই লাগে ভাল।’ হ্যাঁ, বসন্ত এমনই। সারাবছর বলতে না পারা মনের গোপন কথাটিও ফাগুনের প্রথম দিনে প্রিয়জনকে যায় বলে দেওয়া । ভাললাগা ভালবাসার সৌরভ ছড়ানো ছাড়াও মিলনের বার্তা দেয় বসন্ত।

বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিম গেয়েছিলেন, ‘বসন্ত বাতাসে সই গো/বসন্ত বাতাসে/বন্ধুর বাড়ির ফুলের গন্ধ আমার বাড়ি আসে…।’

এভাবে বসন্ত আর ভালবাসা মিলেমিশে আজ একাকার। বসন্তের আগমনে মন উচাটন। এ যেন পুরনো বেদনা, হারিয়ে যাওয়া স্মৃতি ভালবেসে এর পেছনে ছোটারই প্ররোচনা। এমন ঋতু শুরুর দিনটি তাই সবার কাছেই মধুর। আজ সর্বত্রই বসন্ত বরণ উৎসবের আয়োজন। প্রিয় ঋতুকে বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায় বরণ করছেন বাঙালীরা। দিনের আলো বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজধানী ঢাকার অলিগলি রাজপথে ভিড় বাড়ছে। যেন রঙিন হয়ে উঠছে চারপাশ। সকাল হতেই বাসন্তি রং শাড়ি পরে বেরিয়ে পড়েছে তরুণীরা। ছোট্ট মেয়েটিও খোঁপায় জড়িয়ে নিয়েছে গাঁদা ফুল। ছেলেরা পড়েছে রঙীন পোষাক।

অন্যদিকে মানুষের ঢল নেমেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি, চারুকলার বকুলতলাসহ আশপাশের এলাকায়। বসন্তের ঢেউ আছড়ে পড়বে অমর একুশে গ্রন্থমেলায়। বইয়ের মেলা হয়ে উঠবে ফাগুনেরও। রমনা পার্ক, চন্দ্রিমা উদ্যানের সবুজের সঙ্গে আজ হলুদ রংটি মিলেমিশে একাকার হয়ে যাবে। কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস, রেস্তরাঁ সবখানে পরিলক্ষিত হবে উৎসবের রং।

প্রতি বছরের মতো আজও রাজধানীতে আয়োজন করা হবেয়েছে বসন্ত উৎসবের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় সকালে শুরু হয়েছে অনুষ্ঠানমালা। চলবে রাত পর্যন্ত। ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর মঞ্চ, পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ্ পার্ক এবং উত্তরার ৩ নম্বর সেক্টরের রবীন্দ্র সরণির উন্মুক্ত মঞ্চে বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও আয়োজন করা হয়েছে বর্ণাঢ্য বসন্ত শোভাযাত্রার।

অন্যদিকে গতকাল মাঘের শেষ দিনেও অমর একুশে বইমেলায় ছিল বসন্তের আবহ। ঝিরঝিরে পাতা ঝরার শব্দের মত দলে দলে মানুষ এসেছিলেন মেলায়। তরুণীদের পোশাকে ছিল বসন্তের ছোঁয়া। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে, বাংলা একাডেমির গাছে গাছে কোকিলের কুহু কুহু ডাক মেলায় আগতদের আগাম জানান দিয়েছে বসন্ত এসে গেছে। আজ বইমেলার উৎসবের সঙ্গে পহেলা ফাল্গুন হয়ে উঠবে আরও হৃদয় রাঙানো।

সুত্র : রাইজিংবিডি

Add your comment

Your email address will not be published.